আজ বুধবার, ১৭ Jul ২০২৪, ১১:৪৮ অপরাহ্ন

Logo
গাজাযুদ্ধে দিনদিন অক্ষম হয়ে পড়েছে ইসরাইলি সেনারা

গাজাযুদ্ধে দিনদিন অক্ষম হয়ে পড়েছে ইসরাইলি সেনারা

গাজাযুদ্ধে দিনদিন অক্ষম হয়ে পড়েছে ইসরাইলি সেনারা

পল্লী জনপদ ডেস্ক॥

ফিলিস্তিনের অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকায় গণহত্যা ও আগ্রাসন চালাতে গিয়ে ইহুদিবাদী ইসরাইলি বাহিনীর ৭০ হাজারের বেশি সেনা যুদ্ধের জন্য অক্ষম হয়ে পড়েছে। দখলদার ইসরাইলের এত বেশিসংখ্যক সেনা এই প্রথম যুদ্ধক্ষেত্রে অক্ষম হলো।

কোনো ধরনের অর্জন ছাড়াই পার হলো গাজা উপত্যকায় ইসরাইলি আগ্রাসনের ৯ মাস। উল্টো তেল আবিবের জন্য সামরিক সরঞ্জাম সরবরাহ এবং সেনাদের রক্ষণাবেক্ষণে সংকটের মাত্রা দিন দিন বেড়েই চলেছে।

সম্প্রতি ইসরাইলের চ্যানেল সেভেন জানিয়েছে, গত ৭ অক্টোবর গাজা যুদ্ধ শুরুর পর থেকে এ পর্যন্ত ৮ হাজার ৬৬৩ জন আহতসহ ইসরাইলি সেনাবাহিনীতে পঙ্গু সদস্যের সংখ্যা ৭০ হাজার ছাড়িয়েছে।

চ্যানেলটি আরও জানায়, এদের মধ্যে শতকরা ৩৫ ভাগ সেনা ৭ অক্টোবরের পর মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েছে এবং শতকরা ২১ ভাগ সেনা শারীরিকভাবে মারাত্মক আহত হয়ে চিকিত্সাধীন।

ইসরাইল সরকারের যুদ্ধ মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, চলতি বছরের শেষ নাগাদ আরও প্রায় ২০ হাজার নতুন আহত সেনা সদস্যকে চিকিৎসা দেওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে তারা।

ইসরাইলি টেলিভিশন চ্যানেল সেভেন-এর প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘প্রতি মাসে এক হাজারেরও বেশি নতুন আহত পুরুষ ও নারী সেনা সদস্যকে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে ভর্তি করা হচ্ছে। আহতদের মধ্যে শতকরা ৯৫ ভাগই পুরুষ। তাদের মধ্যে শতকরা ৭০ ভাগই রিজার্ভ সেনা।

ইসরাইলি বিশেষজ্ঞদের মতে, আহতদের মধ্যে শতকরা প্রায় ৪০ ভাগ সেনা, যারা ২০২৪ সালের শেষ নাগাদ হাসপাতালে ভর্তি হবে, তারা উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা, বিষন্নতা, আঘাত পরবর্তী মানসিক চাপসহ বিভিন্ন মানসিক সমস্যার সম্মুখিন হতে পারে।

উল্লেখ্য, ফিলিস্তিনে লাগাতার ইসরাইলি অপরাধের জবাবে গত বছরের ৭ অক্টোবর ফিলিস্তিনি প্রতিরোধ গোষ্ঠী হামাস গাজা উপত্যকা থেকে ‘আল-আকসা তুফান’ নামে অভিযান শুরু করে। ইসরাইল তাদের ওই পরাজয়ের গ্লানি মেটাতে যুক্তরাষ্ট্রসহ কিছু পশ্চিমা দেশের সমর্থন ও সহায়তা নিয়ে গাজার সবকিছু বন্ধ করে দেয় এবং নিরীহ গাজাবাসীর ওপর নির্মমভাবে বোমাবর্ষণ শুরু করে।

এদিকে, চলতি মাসের ৭ তারিখে ইলিরান মিজরাহি নামে আরও এক দখলদার সেনা আত্মহত্যা করেছে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ইলিরান পিটিএসডিতে ভুগছিলেন এবং তিনি আহতও ছিলেন। এরমধ্যেই তাকে আবারও যুদ্ধে যোগ দিতে বলা হয়েছিল। এ কারণেই তিনি আত্মহত্যা করেন।

তবে ইলিরান একা নয়, এই তালিকা দিনিকে দিন বড় হচ্ছে। আশঙ্কা করা হচ্ছে আরও সেনা সদস্য একই পথ বেছে নিতে পারে।

অপরদিকে, মার্চ মাসে গবেষকদের একটি দল এক সমীক্ষার বরাতে জানায়, গাজা গণহত্যার পরে ৫০ লাখের বেশি ইসরাইলি পিটিএসডির ঝুঁকিতে রয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ৭ অক্টোবরের পর থেকে গাজায় চলমান ইসরাইলি গণহত্যা এবং হামাসের পাল্টা আক্রমণের আশঙ্কায় রয়েছে ইসরাইলের অধিকাংশ নাগরিক। ভবিষ্যতে কী হবে? এ নিয়েও দুশ্চিন্তা তাদের।

এর আগে ইসরাইলের আচভা একাডেমিক কলেজ, হাইফা ইউনিভার্সিটি এবং যুক্তরাষ্ট্রের কলাম্বিয়া ইউনিভার্সিটির গবেষকদের এক সমীক্ষায় দেখা গেছে, ইসরাইলে প্রতি তিনজনে একজনের পিটিএসডি উপসর্গ রয়েছে।

ইসরাইল শুধু বোমাবর্ষণই নয়, একে একে সমুদ্র ও স্থল অভিযান চালিয়ে এ পর্যন্ত ৩৭ হাজার ৪০০ ফিলিস্তিনিকে হত্যা করেছে। ইসরাইলি আগ্রাসনে নারী-শিশুসহ আহত হয়েছেন আরও ৮৬ হাজার ফিলিস্তিনি।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2017
Developed By

Shipon