আজ বুধবার, ১৭ Jul ২০২৪, ১১:৩০ অপরাহ্ন

Logo
শাকিব’র তৃতীয় বিয়ে নিয়ে নানান গুঞ্জন, অপু বিশ্বাসের বিরক্তি!

শাকিব’র তৃতীয় বিয়ে নিয়ে নানান গুঞ্জন, অপু বিশ্বাসের বিরক্তি!

শাকিব’র তৃতীয় বিয়ে নিয়ে নানান গুঞ্জন, অপু বিশ্বাসের বিরক্তি!

পল্লী জনপদ ডেস্ক॥

শাকিব খানকে নিয়ে আবারও বাকযুদ্ধে শবনম বুবলী ও অপু বিশ্বাস। এরমধ্যেই সংবাদমাধ্যমে খবর, নতুন পাত্রী খুঁজছেন অভিনেতার পরিবার। পরিস্থিতি তাই কিছুটা ঘোলাটে। যদিও ঢাকাই সুপারস্টার বরাবরের মতো নীরব। এরমধ্যেই আবারও বুবলীর কর্মকাণ্ডে বিরক্তি প্রকাশ করলেন অপু বিশ্বাস। বেশ কিছুদিন ধরেই গুঞ্জন উঠেছে তৃতীয় বিয়ে করতে যাচ্ছেন চিত্রনায়ক শাকিব খান। ইতোমধ্যে তার পরিবার থেকেও নাকি বিয়ের তোড়জোড় চলছে। আর শাকিবও চান বাবা-মায়ের পছন্দে বিয়ে করতে।

শনিবার (২৭ এপ্রিল) হঠাৎ করেই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে খবর ছড়িয়ে পড়ে এক ডাক্তার মেয়ের সঙ্গে বিয়ের কথাবার্তা এগোচ্ছে শাকিবের। আর এ কারণে অপু বিশ্বাস এবং শবনম বুবলীকে বাড়িতে ঢোকার অনুমতি দিচ্ছেন না চিত্রনায়কের পরিবার।

একই সঙ্গে শাকিবের পরিবার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন, শাকিবকে নিয়ে কোনো রকম মিথ্যাচার করলেই আইনের আশ্রয় নিতে বাধ্য হবেন।

এ প্রসঙ্গে সত্যতা জানতে চাইলে বিষয়টি নিয়ে এখনই কথা বলতে নারাজ অপু। অভিনেত্রী বলেন, আপাতত এ বিষয়ে কোনো কথা বলতে চাইছি না। তবে খুব শিগগিরই কথা বলব।

দীর্ঘদিন প্রেমের সম্পর্কে থাকার পর গোপনে বিয়ে করেছিলেন শাকিব-অপু। টানা আট বছর সুখে সংসারও করেন তারা। এমনকি সন্তানের মা-বাবাও হন সাবেক এই তারকা দম্পতি। কিন্তু হঠাৎ করেই তাদের মাঝে ঢুকে পড়েন বুবলী। তৈরি হয় শাকিব-অপুর সম্পর্কের টানাপোড়েন।

মূলত বুবলীর সঙ্গে শাকিবের সম্পর্ক তৈরি হওয়াতেই বাঁধে বিপত্তি। নিজের সংসার টেকাতে অনেকটা অনিশ্চয়তা থেকেই নিজের গোপন বিয়ে আর সন্তান জয়কে নিয়ে মিডিয়ার সামনে আসেন অপু। নানান নাটকীয়তার পর শাকিব-অপু প্রকাশ্যে সংসার শুরু করলেও বেশিদিন টেকেনি।

পরবর্তীতে অপুর সঙ্গে বিচ্ছেদ ঘটিয়ে বুবলীকে নিয়ে সংসার শুরু করেন শাকিব। সেই সংসারে শাকিব-বুবলীর কোল জুড়ে আসে ছোট্ট বীর। তবুও ভেঙে যায় তাদের সেই সংসার। ধীরে ধীরে বুবলীর সঙ্গেও দূরত্ব তৈরি হয় শাকিবের।

বর্তমানে দুই সন্তানের বাবা হলেও সিঙ্গেল জীবন কাটাচ্ছেন শাকিব। তবে সন্তানদের কারণে অপু-বুবলীর সঙ্গে যোগাযোগ রাখতে হয়েছে তার।

এদিকে বিচ্ছেদের পর বুবলীর সঙ্গে সখ্যতা না থাকলেও অপু বিশ্বাসের সঙ্গে সখ্যতা বেড়েছিল শাকিবের। পরিবারের সঙ্গেও এবারের ঈদও উদযাপন করেন অপু।

এতে ভক্তরাও ভাবতে শুরু করেন হয়তো আবারও এক হতে যাচ্ছেন শাকিব-অপু। কিন্তু তাদের সেই ভাবনাতেও পানি ঢেলে দিলো চিত্রনায়কের পরিবার। নতুন করে যখন পথ চলতে শুরু করেছেন তারা ঠিক সেই সময়ে ঢালিপাড়ায় ছড়িয়ে পড়ে শাকিবের তৃতীয় বিয়ের কথা।

এদিকে, এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে সংবাদমাধ্যম প্রথম আলো।

অভিনেত্রী প্রথম আলোকে বলেন, ‘‘খেয়াল করে দেখবেন, অন্যজনের (বুবলীকে ইঙ্গিত) মতো আমি কিন্তু শাকিবকে নিয়ে আগ বাড়িয়ে কিছু বলতে যাইনি। তবে হ্যাঁ, যখন আমার কোনো সিনেমা মুক্তি পায়, ছবির খবর নিয়ে সংবাদকর্মীদের সঙ্গে কথা হয়। যেহেতু শাকিব খান বাংলাদেশে সিনেমার সবচেয়ে বড় তারকা, সিনেমা নিয়ে কথা বলতে গিয়ে তাঁর নাম টুকটাক আসতেই পারে। অন্য নায়ক-নায়িকাদের নামও তো আসে। এটি অন্যভাবে নেওয়ার কিছু নেই।’’

কারো না উল্লেখ না করলেও অপু বলেন, ‘‘যখন থেকে শাকিব খান দুজনকেই অতীত বলেছেন, তারপরও কেউ যদি বলে, ‘আমি শাকিবের সঙ্গে কোয়ালিটি টাইম পার করি; আমাদের বাচ্চা অনেক সময় সে সুযোগ করে দেয়।’ এরপর কৌশলে শাকিবের সঙ্গে ছবি তুলে এনে তা সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রকাশ করে সম্পর্ক টিকে আছে, প্রমাণ করতে চায়, সেটিতে অবশ্যই শাকিব ও শাকিবের পরিবার বিরক্ত হবেনই।’’

শাকিবকে নিয়ে অপু ও বুবলীর চর্চায় শাকিব ও তার পরিবার হেয় হয় এমন প্রসঙ্গে অপু বিশ্বাস বলেন, ‘‘আমি চেষ্টা করি শাকিবের ব্যক্তিগত বিষয় এড়িয়ে চলতে। আমি শাকিবকে জড়িয়ে অন্যের মতো ভয়ংকর তথ্য দিই না। অন্য কেউ যেভাবে বলেন, (বুবলীকে ইঙ্গিত করে) খুবই স্বাভাবিকভাবেই শাকিব, শাকিবের পরিবার অস্বস্তির মধ্যে পড়েন। কারণ, তাদের পরিবার-পরিজন আছেন। তাদের ছেলেমেয়েরা স্কুলে যায়। সেখানেও একটি সার্কেল আছে। সেখানে এসব কথা নিয়ে মুখোমুখি হতে হয় পরিবারের সদস্যদের।’’

বুবলীকে ইঙ্গিত করে এই অভিনেত্রীর মন্তব্য, ‘‘গায়ের জোরে সম্পর্ক দেখানোর তো কিছু নেই। শাকিবকে নিয়ে কারও কাছে ‘গায়ে মানে না আপনি মোড়ল’ মনে হচ্ছে। পুরো বিষয়টা আমার কাছে হাস্যকর লাগে।’’

এই অভিনেত্রীর কথা, ‘‘আমরা শিল্পী, আমাদের খালি অভিনয় করাই কাজ নয়। সমাজের দায়বদ্ধতা আছে। আমাদের হাজার হাজার মানুষ অনুসরণ করেন। আমাদের কাছ থেকে এই অনুসারীদের শিক্ষা যেন সমাজে ভুল বার্তা না যায়। সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।’’

অপু ও বুবলীর শাকিবের বাসায় প্রবেশ মানা প্রসঙ্গে অপু বিশ্বাস বলেন, ‘‘শাকিবের বাসা মানে বাচ্চাদেরই বাসা। সেখানে বাচ্চারা তাদের মতো করেই যাবে। আমার যেতেই হবে, এমনটি নয়। একটা সময় বাচ্চারা তো ওই বাড়িতে থাকবে। এখন আমার বাচ্চা ছোট, আমার কাছে থাকে। কিন্তু আসল বাড়ি ওখানেই। সেটি বাচ্চার বাবা, দাদা–দাদিরা যেভাবে চাইবেন, সেভাবেই হবে।’’

তিনি বলেন, ‘‘আমি কিন্তু ২০১৮ সালের পর টানা চার বছর শাকিবের বাসায় যাইনি। আমি মায়ের সঙ্গে থেকেছি। হাসপাতালে মা মারা যাওয়ার খবরটাও তাদের দিইনি। শুধু মায়ের লাশ যখন অ্যাম্বুলেন্সে করে বগুড়ায় নিচ্ছিলাম, তখন ফোনে জানিয়েছিলাম। কেন যাইনি, সেটাও অনেকে জানেন। কারণ, আমার সংসারজীবনে অন্য কেউ এসে অনেক কষ্ট দিয়েছে আমাকে।’’

এ বিষয়ে তিনি আরও বলেন, ‘‘গণমাধ্যমে পড়লাম। একজন বলেছেন, ‘আমাদের সন্তান আছে, আমার সন্তানের নিরাপত্তা আমার কাছে সবার আগে। কেউ চাইলেই তো আমি আমার সন্তানকে একা কোথাও ছাড়ব না।’ সন্তান যাবে তার বাবার বাড়ি। তা যে কারোর সঙ্গেই যেতে পারে। বাবার কাছে সন্তানের নিরাপত্তাহীনতার মানে কী? এটি একটি হাস্যকর কথা। তার মানে বোঝা যাচ্ছে, বাচ্চার সঙ্গে সেখানে যাওয়ার অর্থই নিজের স্বার্থ হাসিল করা। তাই বাচ্চাকে নিরাপত্তার অজুহাতে একা দিতে চান না।’’

বুবলীর নাম উল্লেখ না করেই অপু বিশ্বাস বলেন, ‘‘বাচ্চার সঙ্গে শাকিবের বাসায় অন্যজন (বুবলী) গেলে, আমিও যাব।’’

শাকিবের জন্য পরিবার পাত্রী দেখছে এমন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘‘এখানে আমার বলার কী আছে! প্রত্যেক মানুষেরই ব্যক্তিস্বাধীনতা আছে। ভালো লাগা আছে। তবে আমার আচরণে পরিবারের এমন সিদ্ধান্ত, এটা বিশ্বাস করি না। শাকিবকে নিয়ে অন্য একজনের (বুবলী) কথাবার্তা কেমন, তা এখন সবার জানা। তার কারণে শাকিবের পরিবার বিরক্ত হতে পারে।’’

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2017
Developed By

Shipon