আজ রবিবার, ২৩ Jun ২০২৪, ০৮:২৪ পূর্বাহ্ন

Logo
ট্রেনে করে পদ্মা নদী পার হওয়ার স্বপ্ন পূরণের দিন আজ : শেখ হাসিনা

ট্রেনে করে পদ্মা নদী পার হওয়ার স্বপ্ন পূরণের দিন আজ : শেখ হাসিনা

ট্রেনে করে পদ্মা নদী পার হওয়ার স্বপ্ন পূরণের দিন আজ : শেখ হাসিনা

পল্লী জনপদ ডেস্ক॥

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পদ্মা সেতুর মাধ্যমে ঢাকা ও যশোরের মধ্যে রেল সংযোগের ঢাকা-ভাঙ্গা অংশের উদ্বোধন করেছেন। মঙ্গলবার (১০ অক্টোবর) সকালে প্রধানমন্ত্রীর ছোট বোন শেখ রেহানা উপস্থিত থাকায় মুন্সীগঞ্জের মাওয়া রেলস্টেশনে এক নাগরিক সমাবেশে ডিজিটাল পদ্ধতিতে বোতাম টিপে একটি ফলক উন্মোচন করে রেলপথের উদ্বোধন করেন তিনি। রেল পরিষেবা উদ্বোধনের আগে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ট্রেনে করে পদ্মা নদী পার হওয়ার স্বপ্ন পূরণের দিন।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ রেলওয়েকে ট্রান্স এশিয়ান রেলওয়ের সঙ্গে যুক্ত করার লক্ষ্য তাদের রয়েছে। “আমরা এই লক্ষ্যে কাজ করছি,” তিনি যোগ করেছেন। রেল রুটে বাণিজ্যিক ট্রেন পরিষেবা অল্প সময়ের মধ্যে শুরু হবে বলে সূত্র জানিয়েছে।

রেল সংযোগ সম্পূর্ণরূপে চালু হয়ে গেলে, এটি ঢাকা ও যশোরের মধ্যে যাতায়াতের সময় অর্ধেক সাশ্রয় করবে, দেশের রেল যোগাযোগকে একটি বড় উৎসাহ দিতে সহায়তা করবে। রেল সংযোগ দেশের অর্থনীতিতে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখবে, কারণ দেশের ৬৪টি জেলাকে পর্যায়ক্রমে রেলওয়ে নেটওয়ার্কের আওতায় আনা হবে। গত ৭ সেপ্টেম্বর পদ্মা সেতু দিয়ে ঢাকা-ভাঙ্গা রুটে বিশেষ ট্রেনের ট্রায়াল রান সম্পন্ন হয়।

রেলমন্ত্রী মোঃ নুরুল ইসলাম সুজনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ, স্থানীয় সংসদ সদস্য (মুন্সীগঞ্জ-২) সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি, বাংলাদেশে নিযুক্ত চীনের রাষ্ট্রদূত ইয়াও ওয়েন এবং রেলপথ সচিব ড. মোঃ হুমায়ুন কবির। রেলপথ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী ও বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক মোঃ কামরুল আহসান মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে ঢাকা ও যশোরের মধ্যে রেল যোগাযোগের ওপর একটি ভিডিও ডকুমেন্টারি প্রদর্শন করা হয়। মুন্সীগঞ্জের মাওয়ায় মানবসমুদ্রে পরিণত হওয়া নাগরিক সমাবেশে যোগদান শেষে প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতু হয়ে ফরিদপুরের ভাঙ্গা পৌঁছানোর টিকিট কেটে বিশেষ ট্রেনে চড়ে যাওয়ার কথা রয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী তার টুঙ্গিপাড়ার বাসায় এক রাত থাকার পর বুধবার দুপুরে তিনি গোপালগঞ্জ থেকে ঢাকার উদ্দেশে ত্যাগ করবেন এবং বিকেলে তার সরকারি বাসভবন গণভবনে পৌঁছানোর কথা রয়েছে।

বাংলাদেশ রেলওয়ে পদ্মা সেতু রেল সংযোগ প্রকল্পের অধীনে ঢাকা থেকে যশোর পর্যন্ত ১৭২ কিলোমিটার দীর্ঘ নতুন রেল ট্র্যাক নির্মাণ করছে কারণ এর ৮২ কিলোমিটার অংশ ঢাকা ও ভাঙ্গাকে সংযুক্ত করে আজ খোলা হয়েছে এবং যশোর সংযোগকারী অবশিষ্ট অংশ আগামী বছরের জুনে চালু হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। বিস্তারিত বলেন.

গত বছরের জুনে যুগান্তকারী পদ্মা সেতু উদ্বোধনের এক বছর দুই মাস পর পদ্মা সেতু হয়ে ঢাকা-ভাঙ্গা রেল সার্ভিস উদ্বোধন করা হয়। গত বছরের ১৪ অক্টোবর প্রধানমন্ত্রী ‘পদ্মা সেতু রেল সংযোগ নির্মাণ প্রকল্পের’ আওতায় ঢাকা ও যশোরের মধ্যে রেল সংযোগ নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেন কারণ প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ৩৯,২৪৬.৮০ কোটি টাকা এবং চীনের এক্সিম ব্যাংক ২১,০৩৬.৭০ কোটি টাকা দিচ্ছে। কোটি টাকা ঋণ হিসেবে।

পদ্মা সেতুর মাধ্যমে রেলওয়ে সংযোগটি দেশের মধ্য ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সাথে রাজধানীতে প্রবেশযোগ্যতা উন্নত করবে, যা মুন্সীগঞ্জ, শরীয়তপুর, মাদারীপুর এবং নড়াইল জেলার নতুন এলাকাকে কভার করবে। প্রকল্পটি ঢাকা-যশোর-খুলনাকে ২১২.০৫ কিলোমিটার সংক্ষিপ্ত রুট দিয়ে বিকল্প রেলপথ সংযোগ স্থাপন করবে।

এটি বাংলাদেশে ট্রান্স-এশিয়ান রেলওয়ে নেটওয়ার্কের আরেকটি উপ-রুট স্থাপন করবে এবং জাতীয়, আঞ্চলিক এবং আন্তর্জাতিক মালবাহী এবং বিজি কন্টেইনার ট্রেন পরিষেবা চালু করবে কারণ এই রুটটি কন্টেইনার বহনের জন্য গতি এবং লোড সীমাবদ্ধতা থেকে মুক্ত হবে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2017
Developed By

Shipon