আজ রবিবার, ২৩ Jun ২০২৪, ০৬:৪৩ পূর্বাহ্ন

Logo
দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ক্ষণগণনা ১ নভেম্বর থেকে শুরু, উৎসবমুখর নির্বাচনের অনুকূল পরিবেশ নেই : ইসি

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ক্ষণগণনা ১ নভেম্বর থেকে শুরু, উৎসবমুখর নির্বাচনের অনুকূল পরিবেশ নেই : ইসি

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ক্ষণগণনা ১ নভেম্বর থেকে শুরু, উৎসবমুখর নির্বাচনের অনুকূল পরিবেশ নেই : ইসি

পল্লী জনপদ ডেস্ক॥

নির্বাচনের প্রত্যাশিত পরিবেশ এখনো হয়ে ওঠেনি: ইসি। দৈনিক ইত্তেফাকের শিরোনাম এটি। বলা হচ্ছে অবাধ, নিরপেক্ষ, অংশগ্রহণমূলক এবং উৎসবমুখর নির্বাচনের যে অনুকূল পরিবেশের প্রত্যাশা করা হয়েছিলো সেটি এখনো হয়ে উঠেনি বলে মনে করছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

গণমাধ্যমের সম্পাদকদের বরাবর পাঠানো এক ধারণাপত্রে এই কথা উল্লেখ করা হয়েছে। ধারণাপত্রে বলা হয়েছে, প্রত্যাশিত সংলাপ ও সমঝোতার মাধ্যমে মতভেদ নিরসন হয়নি। প্রতিদ্বন্দ্বী প্রধানতম দলগুলো স্ব স্ব সিদ্ধান্ত ও অবস্থানে অনড়। রাজপথে মিছিল, জনসমাবেশ ও শক্তি প্রদর্শন করে স্ব স্ব পক্ষে সমর্থন প্রদর্শনের চেষ্টা হচ্ছে। কিন্তু ওতে প্রত্যাশিত মীমাংসা বা সংকটের নিরসন হচ্ছে বলে কমিশন মনে করে না।

আগামী ২৬ অক্টোবর গণমাধ্যম সম্পাদকদের নিয়ে কর্মশালার আয়োজন করেছে সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানটি।

পরিবেশ নিয়ে অসন্তুষ্টি, ভোটের প্রস্তুতিতে ইসি– দৈনিক প্রথম আলোর প্রধান শিরোনাম এটি। বলা হয় নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে প্রধান দুই দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপি মুখোমুখি অবস্থানে। আওয়ামী লীগ সরকারের অধীনে নির্বাচনে না যাওয়ার ঘোষণা দিয়ে আন্দোলনে বিএনপিসহ বিরোধী দলগুলো।

নির্বাচন কমিশনও মনে করছে, অবাধ, নিরপেক্ষ, অংশগ্রহণমূলক ও উৎসবমুখর নির্বাচনের জন্য প্রত্যাশিত ‘অনুকূল পরিবেশ’ এখনো হয়নি। এ রকম একটা পরিস্থিতির মধ্যেই নির্বাচনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করে এনেছে ইসি। বৃহস্পতিবার থেকে নির্বাচনী সরঞ্জাম আঞ্চলিক কার্যালয়গুলোতে পাঠানোর প্রক্রিয়াও শুরু হয়েছে।

ইসি বলছে নির্বাচনের অনুকূল পরিবেশ নেই– যুগান্তরের শিরোনাম। দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের কাউন্টডাউন বা ক্ষণগণনা ১ নভেম্বর থেকে শুরু হচ্ছে। এতদিন নির্বাচন কমিশন (ইসি) বলে আসছিল নভেম্বরে নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা ও জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহে ভোট গ্রহণ করা হবে। অথচ তফসিল ঘোষণার কয়েকদিন বাকি থাকতে ইসি বলছে অবাধ, নিরপেক্ষ, অংশগ্রহণমূলক ও উৎসবমুখর নির্বাচনের জন্য যে অনুকূল পরিবেশ প্রত্যাশা করা হয়েছিল সেটি এখনো হয়ে উঠেনি।

নির্বাচন কমিশন (ইসি) সূত্র জানায়, ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহে বা আগামী বছরের জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহে ভোট করার লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে। তফসিল ঘোষণার পর কখন কোন কাজ করা হবে, তার রূপরেখাও চূড়ান্ত করা হয়েছে। নভেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহে তফসিল ঘোষণা করা হতে পারে।

নির্বাচনে ইইউ পর্যবেক্ষক টিম আসবে থাকবে দুই মাস– নয়া দিগন্তের শিরোনাম এটি। বলা হয় ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) দ্বাদশ জাতীয় নির্বাচনে পর্যবেক্ষক পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সংস্থাটি পর্যবেক্ষক পাঠাবে বলে এক চিঠিতে জানিয়েছে নির্বাচন কমিশনকে (ইসি)। তাদের টিম বাংলাদেশে দুই মাস অবস্থান করবে বলেও জানিয়েছে ইসিকে। ইসির একাধিক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

ইইউর চিঠিতে বলা হয়েছে, আগামী ২১ নভেম্বর থেকে ২১ জানুয়ারি পর্যন্ত তারা বাংলাদেশে জাতীয় সংসদ নির্বাচন পর্যবেক্ষণের জন্য অবস্থান করবে। এ সময় তাদের চার সদস্যের প্রতিনিধিদল ভোট পর্যবেক্ষণ করবে। সাথে থাকবে টেকনিক্যাল টিমের দুই সদস্য।

Next tranche of $681m expected in Dec– অর্থাৎ আইএমএফের ২য় কিস্তির টাকা বাংলাদেশ ডিসেম্বরে পাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে, যার পরিমাণ ৬৮১ মিলিয়ন ইউএস ডলার। ডেইলি স্টারের খবরে বিস্তারিত বলা হয় আইএমএফের শর্ত মানায় সামনের লক্ষ্যও খানিকটা শিথিল করা হবে।

দ্বিতীয় কিস্তি ছাড়ে আইএমএফ মিশন ইতিবাচক– দৈনিক যুগান্তরের শিরোনাম। পত্রিকাটি বলছে বাংলাদেশের অনুকূলে ঋণের দ্বিতীয় কিস্তি ছাড়ের বিষয়ে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) সফররত মিশন ইতিবাচক মনোভাব দেখিয়েছে। দ্বিতীয় কিস্তি ছাড়ে প্রথম পর্যালোচনা শেষ করতে তারা বিভিন্ন নীতির বিষয়ে বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে ঐকমত্যে পৌঁছেছে।

অগ্রগতি পর্যালোচনা করতে ৪ অক্টোবর আইএমএফের কর্মকর্তা রাহুল আনন্দের নেতৃত্বে মিশনটি ঢাকায় আসে। সরকারের সঙ্গে বৈঠকের শেষ দিন বৃহস্পতিবার আইএমএফ মিশনের বিবৃতিতে বলা হয়, প্রথম পর্যালোচনা শেষ হলে বাংলাদেশ দ্বিতীয় কিস্তির ৬৮ কোটি ১০ লাখ ডলার ঋণ পাবে।

আইএমএফের ঋণের দ্বিতীয় কিস্তি পেতে সমঝোতা– কালের কন্ঠের শিরোনাম। বলা হচ্ছে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) ঋণের দুটি শর্ত পূরণ করতে পারেনি বাংলাদেশ। এর পরও ঋণের দ্বিতীয় কিস্তির ৬৮ কোটি ১০ লাখ ডলার পাওয়ার আশা করেছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মেজবাউল হক। আইএমএফের বিবৃতিতেও ঐকমত্যের কথা জানানো হয়েছে। সেটি আগামী ১১ ডিসেম্বর তাদের বোর্ড মিটিংয়ে অনুমোদনের পর কয়েক সপ্তাহের মধ্যে চূড়ান্ত হতে পারে। এ ছাড়া আইএমএফ প্রতিনিধিদল মিশনের সর্বশেষ দিনে অর্থ মন্ত্রণালয়ের সঙ্গেও আলাদা বৈঠক করেছে।

ব্যাংকিং খাতের দুর্বলতা মোকাবেলা করা, মুদ্রা সরবরাহ আরো সংকুচিত করা, তার সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণভাবে নিরপেক্ষ রাজস্বনীতি ও মুদ্রার বিনিময় হার আরো নমনীয় করার পরামর্শ দিয়েছে আইএমএফ। বৈঠক প্রসঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র বলেন, ‘আমাদের মোট ছয়টি শর্ত ছিল। এর মধ্যে চারটি শর্ত পরিপালন করেছি, বাকি দুটি শর্তের কিছু কিছু জায়গায় আমাদের ঘাটতি ছিল। মেজবাউল হক বলেন, ‘আইএমএফের সঙ্গে বিস্তারিত আলোচনার পর আমরা যেসব শর্ত আদায় করতে পারিনি সেগুলো বাস্তবায়নে কাজ করে যাব।

রিজার্ভ নেমেছে ২০ বিলিয়ন ডলারের ঘরে– বণিক বার্তার শিরোনাম এটি। পত্রিকাটি বলছে দেশের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ২০ বিলিয়ন ডলারের ঘরে নেমে গেছে।

গত বুধবার আন্তর্জাতিক মানদণ্ড অনুযায়ী (বিপিএম৬) রিজার্ভের পরিমাণ ছিল ২ হাজার ৯৫ কোটি বা ২০ দশমিক ৯৫ বিলিয়ন ডলার। বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে গতকাল এ তথ্য জানানো হয়েছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, গত ১১ অক্টোবর রিজার্ভ ছিল ২১ দশমিক শূন্য ৭ বিলিয়ন ডলার। ১৮ অক্টোবর যা ২০ দশমিক ৯৫ বিলিয়ন ডলারে নেমে এসেছে। এ হিসাবে এক সপ্তাহের ব্যবধানে রিজার্ভ ১১ কোটি ডলার কমেছে।

এর আগে গত সেপ্টেম্বরে রিজার্ভ প্রায় ২ বিলিয়ন ডলার কমে গিয়েছিল। শুধু গত মাসেই রিজার্ভের প্রায় ৯ শতাংশ ক্ষয় হয়। এক মাসে রিজার্ভের এত বড় ক্ষয় আগে কখনো দেখা যায়নি।

Millions suffer as gas crisis worsen– ইংরেজি দৈনিক নিউ এজের প্রধান শিরোনাম। বলা হচ্ছে তীব্র গ্যাস সংকটে লাখো মানুষের জীবন বিপর্যস্ত, গত সপ্তাহ থেকে গ্যাসের সরবরাহ আরও কমে গিয়েছে, ডলার সংকটে এই মূহুর্তে গ্যাস আমদানিও সীমিত করে এনেছে সরকার। সাধারণত শীতের সময় গ্যাসের সংকট বেশি করে তৈরি হয়, তবে এবার শীত আসার এক মাস আগে থেকেই এ সংকট তৈরি হয়েছে।

পত্রিকাটি বলছে অন্তত ৪০ লাখ মানুষ রান্নার জন্য এই সরবরাহ করা লাইনের গ্যাসের উপর নির্ভরশীল, যাদের বেশিরভাগই ঢাকায়। অন্যদিকে হাজার থ্রি-হুইলারও সিএনজির উপর নির্ভরশীল। আর সবক্ষেত্রেই গ্যাস সংকটের প্রভাব পড়েছে।

২৮ অক্টোবর পাল্টা কর্মসূচী আ’লীগের-সমকালের শিরোনাম। তারা বলছে বিএনপির ২৮ অক্টোবর মহাসমাবেশের কর্মসূচির দিকে নজর রাখছে আওয়ামী লীগ। ওই দিন পাল্টা কর্মসূচি দিচ্ছে ক্ষমতাসীন দলটি। তবে বিএনপির মহাসমাবেশের স্থান ঘোষণার পরই এই কর্মসূচির চূড়ান্ত ঘোষণা হবে।

যথারীতি ফিলিস্তিনি পরিস্থিতি নিয়েও প্রথম পাতায় খবর ছেপেছে প্রায় সবকটি জাতীয় পত্রিকা। সমকালের অন্যতম প্রধান শিরোনাম খোলেনি রাফাহ ক্রসিং, খাদ্য ওষুধের তীব্র সংকট। গাজায় মৃতের সংখ্যা ৯ হাজার ৮০০ ছাড়াল।

প্রাণ হাতে ত্রাণের অপেক্ষা– দেশ রুপান্তরের শিরোনাম এটি। খবরে বলা হচ্ছে ফিলিস্তিনি স্বাধীনতাকামী সংগঠন হামাসের হামলার জবাবে ১৩ দিন ধরে গাজায় নির্বিচার বিমান হামলা চালিয়ে যাচ্ছে ইসরায়েল। প্রস্তুত হয়ে আছে স্থল ও নৌপথে কথিত অভিযান চালানোর জন্যও। ইতিমধ্যে উত্তর গাজা ইসরায়েলি বাহিনীর হামলায় আক্ষরিক অর্থেই ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ইসরায়েল সফরকালে গাজার বেসামরিক মানুষের কথা চিন্তা করে সেখানে খাবার, পানি সরবরাহের সুযোগ দিতে ইসরায়েলের প্রেসিডেন্ট বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর প্রতি আহ্বান জানিয়েছিলেন। মিসরের প্রেসিডেন্ট আবদেল ফাত্তাহ আল-সিসির সঙ্গেও বিষয়টি নিয়ে কথা বলেছিলেন। তারই পরিপ্রেক্ষিতে গাজায় ত্রাণ সহায়তা পৌঁছাতে রাফা সীমান্ত ক্রসিং খুলে দিতে রাজি হয়েছে মিসর। ইসরায়েলও বলেছে ওই অঞ্চলে হামলা চালাবে না।

প্যালেস্টাইনের জন্য কাল বাংলাদেশে রাষ্ট্রীয় শোক– বেশ কিছু পত্রিকায় এসেছে এমন শিরোনাম। দৈনিক সংবাদ বলছে, গাজাসহ প্যালেস্টাইনের ইসরায়েলি দখলদার বাহিনীর বর্বরোচিত হামলায় প্যালেস্টাইনি নাগরিকদের মৃত্যুতে শনিবার (২১ অক্টোবর) রাষ্ট্রীয় শোক পালন করবে সরকার। রাষ্ট্রপতির আদেশে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মো. মাহবুব হোসেন স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে বৃহস্পতিবার (১৯ অক্টোবর) এই তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, আজ বাদ জুমা প্যালেস্টাইনের নিহতদের আত্মার শান্তি ও আহতদের সুস্থতার জন্য বাংলাদেশের সব মসজিদে বিশেষ দোয়া অনুষ্ঠিত হবে। অন্যান্য ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে বিশেষ প্রার্থনার আয়োজন করা হবে। এছাড়া শনিবার বাংলাদেশের সব সরকারি, আধাসরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান এবং শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ সব সরকারি ও বেসরকারি ভবন এবং বিদেশে বাংলাদেশ মিশনগুলোতে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত থাকবে।

অন্যান্য খবর

পুলিশের চাঁদাবাজি বন্ধে পুলিশ– দেশ রুপান্তরের প্রধান শিরোনাম। বলা হয় কমিউনিটি পুলিশিং ডের অনুষ্ঠান ঘিরে পুলিশের চাঁদাবাজির অভিযোগ পাওয়ার পর তা বন্ধে উদ্যোগ নিয়েছে পুলিশ সদর দপ্তর।

বিশেষ করে পুলিশের মহাপরিদর্শকের (আইজিপি) বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নিয়েছে। যে কারণে এবার কমিউনিটি পুলিশিং ডে দেশের কোনো থানা এলাকায় না করার সিদ্ধান্ত হয়েছে। পাশাপাশি চাঁদাবাজি যেন না হয় সেটাও কঠোর মনিটরিংয়ে রাখতে বলা হয়েছে। এলাকার অরাজনৈতিক ও গণ্যমান্য ব্যক্তিকে সভাপতি করে কমিউনিটি পুলিশিংয়ের কমিটি গঠন করা হয়। তাদের কাজের উৎসাহ দিতে প্রতি বছরই ‘কমিউনিটি পুলিশিং ডে’ উদযাপন করে আসছে পুলিশ সদর দপ্তর। অভিযোগ উঠেছে, কমিউনিটি পুলিশিং ডে উদযাপন অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা (ওসি) বিভিন্ন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে ‘অনুদান’ নিচ্ছেন। এ নিয়ে সমালোচনা হচ্ছে পুলিশের বিরুদ্ধে।

প্রথম থেকে নবম শ্রেণী, এক বছরে শিক্ষার্থী কমেছে ২৮ লাখ– দৈনিক সংবাদের শিরোনাম। বলা হচ্ছে এক বছরে প্রথম থেকে নবম শ্রেণী পর্যন্ত প্রায় ২৮ লাখ শিক্ষার্থী কমেছে। এ কারণে প্রায় পৌনে তিন কোটি পাঠ্যবইও কম ছাপা হচ্ছে।

দেশি পেঁয়াজের দাম কন্ট্রোল করা যাচ্ছে না– টিপু মুনশি। দৈনিক সংবাদের এই খবরে বলা হচ্ছে ভারত পেঁয়াজ আমদানিতে ডিউটী বৃদ্ধি করায় এবং দেশীয় পেঁয়াজের দাম বেড়ে যাওয়ায় দাম কন্ট্রোল করা যাচ্ছেনা। অন্য দিকে মানুষ মাছ ও সব্জিতে আলু বেশী খাচ্ছে বলেও দাম কমানো যাচ্ছেনা। তিনি বৃহসপতিবার বিকেল সোয়া ৫ টার দিকে রংপুর নগরীর ধাপ সাগর পাড়া এলাকায় অবস্থিত বাসভবনে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় কালে এসব কথা বলেন।

কমেনি ডিমের দাম বরং বেড়েছে – দৈনিক মানবকন্ঠের শিরোনাম। খবরে বলা হচ্ছে বাজারে ডিমের দাম নিয়ন্ত্রণে আনতে সম্প্রতি তিন দফায় ১৫ কোটি ডিম আমদানির অনুমতি দেয় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। অনুমতি পাওয়ার এক মাসে একটি ডিমও আমদানি হয়নি। ফলে দাম তো কমেইনি উল্টো বেড়েছে। মূলত শর্ত পূরণ, অতিরিক্ত কর, পূজার ছুটিসহ নানা জটিলতায় ডিম আমদানি করে লাভের আশা কম বলছে আমদানিকারকরা।

বিশ্বকাপে ভারতের কাছে বাংলাদেশের পরাজয় নিয়ে শিরোনাম করেছে বেশ কিছু পত্রিকা। প্রথম আলো লিখেছে, শুরুর বদলে সমস্যা এবার মাঝে। অর্থাৎ ওপেনিংয়ে দারুণ শুরুর পরও বড় সংগ্রহ গড়তে ব্যর্থ বাংলাদেশ। শেষ পর্যন্ত ম্যাচটি হেরেছে ৭ উইকেটে।

বাংলাদেশ প্রতিদিনের শিরোনাম উচ্ছ্বাসে শুরু, হতাশায় শেষ। সূত্র : বিবিসি বাংলা

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2017
Developed By

Shipon