আজ রবিবার, ২৩ Jun ২০২৪, ০৭:২৩ পূর্বাহ্ন

Logo
বোরহানউদ্দিনে বালুর ড্রেজার মেশিনের শব্দে অতিষ্ঠ স্কুল শিক্ষার্থীরা, প্রশাসনের হস্তক্ষেপে বন্ধ

বোরহানউদ্দিনে বালুর ড্রেজার মেশিনের শব্দে অতিষ্ঠ স্কুল শিক্ষার্থীরা, প্রশাসনের হস্তক্ষেপে বন্ধ

বোরহানউদ্দিনে বালুর ড্রেজার মেশিনের শব্দে অতিষ্ঠ স্কুল শিক্ষার্থীরা, প্রশাসনের হস্তক্ষেপে বন্ধ

মো. মহিউদ্দিন আজিম, বোরহানউদ্দিন প্রতিনিধিঃ

ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলার কুতুবা ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডে ১২ নং দক্ষিণ ছোট মানিকা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় অবস্থিত। এ বিদ্যালয়ের সামনে দিয়ে বয়ে গেছে কালিগঙ্গা নদী। যা তেতুলিয়া ও মেঘনা নদীতে গিয়ে মিলেছে। বোরহানউদ্দিন উপজেলার পৌর শহর থেকে প্রায় ২ কিঃমিঃ দূরে যানজট মুক্ত আবাসিক এলাকা হিসেবে পরিচিত ফকির বাড়ির মোড় নামক জায়গাটি বেছে নিয়ে প্রভাবশালী মহলের ছত্রছায়ায় অবৈধভাবে গড়ে তুলেছে বালু বিক্রির খলা। যা এ শান্তিপূর্ণ আবাসিক এলাকায় এখন বিষাক্ত বিষফোঁড়া হয়ে দাঁড়িয়েছে।

রবিবার (২৯ অক্টোবর, ২০২৩) সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি খোলা থাকার বিষয়টি দেখার পরেও প্রভাবশালী মহলের ছত্রছায়ায় গড়ে ওঠা অবৈধ বালু খোলায় ড্রেজার মেশিন চালিয়ে বিকট শব্দে বালু উত্তোলন করা হয়।

এ প্রতিবেদককে স্থানীয়রা খবর দিলে, সেখানে গিয়ে দেখা যায় বিকেল ২ টার সময় বিকট শব্দে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। এ বিষয়ে বালুর বলগেট ও ড্রেজার মেশিনটি কার জানতে চাইলে ড্রেজার মেশিন চালানোর দায়িত্বে থাকা লোকজন বলেন, এটি জনৈক নুরু মিয়ার। এ প্রতিবেদক তাদেরকে স্কুল চলাকালীন বিকট শব্দে ড্রেজার মেশিন চালানোর বিষয়ে জানতে চাইলে তারা বলেন, আমরা নুরু মিয়ার নির্দেশে কাজ করি, আমাদেরকে জিজ্ঞেস না করে নুরু মিয়াকে জিজ্ঞেস করেন।

এ বিষয়ে স্কুলের শিক্ষক ও ছোট ছোট কোমলমতি শিক্ষার্থীরা এ প্রতিবেদককে বলেন, বিদ্যালয়ের শ্রেণি কক্ষের মধ্যে বিকট আওয়াজ প্রতিধ্বনি হয়ে লেখা-পড়া বিঘ্নিত হচ্ছে। স্থানীয় হাসান পাটোয়ারী বলেন, বালু উত্তোলনের মেশিনের বিকট শব্দে এখানে অবস্থিত স্কুলের শিক্ষা কার্যক্রমে ব্যাঘাত ঘটছে। আমার এখানে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে, যখন বালু উত্তোলন করে তখন দোকান বন্ধ করে চলে যাই। তিনি এ প্রতিবেদককে প্রশ্ন করে বলেন, এই বিকট আওয়াজে এখানে বসে থাকা যায় বলেন?

স্থানীয় বাসিন্দা মো. রুবেল ফকির বলেন, স্যার এটা ঘনবসতিপূর্ণ এলাকা। এখানে একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, একটি জামে মসজিদ ও হাফেজিয়া মাদ্রাসা রয়েছে। অথচ বালু ব্যবসায়ীরা ড্রেজার মেশিন বিকট শব্দে চালিয়ে আমাদের পরিবেশকে অতিষ্ঠ করে তুলছে। তিনি আরও বলেন, আমাদের ছোট বাচ্চারা এই বিকট আওয়াজের কারণে ঘুমাতে পর্যন্ত পারে না।

স্থানীয় বয়োজ্যেষ্ঠ মুরুব্বি নুরু ফকির বলেন, ভাই আমাগোরে একটু বাচান, এই বিকট আওয়াজের কারণে মসজিদে নামাজ পর্যন্ত পরতে পারি না, সূরা-কেরাত ভুইলা যাই।

এ বিষয়ে বোরহানউদ্দিন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ রায়হান-উজ্জামানকে, মুঠোফোনে বিষয়টি অবগত করলে তিনি তাৎক্ষণিক এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) নাজমুল হাসানকে পুলিশ ফোর্সসহ সেখানে পাঠালে ড্রেজার মেশিন চালানো লোকজন দ্রুত সটকে পরে।

কিন্তু বলগেটের ইনচার্জ, সুকানিসহ ৩ জনকে আটক করেন এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট ও সহকারী কমিশনার ভূমি নাজমুল হাসান। বলগেটে থাকা বালুর কোন বৈধ কাগজপত্র দেখাতে না পারায় ৩ জনকে ১৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। আর ড্রেজার মেশিন চালানো লোকজন পালিয়ে যাওয়ায় তাদের ড্রেজার মেশিন ও পাইপ সেখান থেকে অপসারণের দায়িত্ব দেয়া হয় সেখানকার ব্যবসায়ী সুমন পঞ্চায়েত নামক একজনকে।

স্থানীয় লোকজন নির্বাহী অফিসার মোঃ রায়হান-উজ্জামান ও সহকারী কমিশনার ভূমি নাজমুল হাসানকে একত্রে পেয়ে অভিযোগ করে বলেন, স্যার এই জয়া-বোরহানউদ্দিন রোডের ফকির বাড়ির চৌরাস্তা নামক জায়গাটি নদী ভাঙনকবলিত।

এ নদী ভাঙনরোধে জিও ব্যাগ এবং ব্লক দিয়ে নদী ভাঙন বর্তমান সরকার উদ্যোগ নিয়ে দুটি ইউনিয়নকে রক্ষা করেছে। কিন্তু কতিপয় অসাধু ব্যক্তি অবৈধভাবে বালুর ড্রেজার পাইপ বসিয়ে বালু সরবরাহ করার কারণে এই বাঁধটি হুমকির মুখে।
তারা আরও বলেন, কতিপয় অসাধু ব্যক্তির ব্যবসার জন্য আমাদের দীর্ঘদিনের নদী ভাঙনরোধে সরকারের দেয়া ব্লক ও জিও ব্যাগ সরে গিয়ে আবারও নদী ভাঙনের মুখে পড়তে হবে। আমাদের দুটি ইউনিয়নের চলাচলের রাস্তা এটি। আমাদের ছেলে-মেয়েরা লেখাপড়ার জন্য স্কুল-কলেজে যাওয়া এবং বোরহানউদ্দিন উপজেলা সদরে যাওয়ার রাস্তা এটি। আমরা অবৈধ বালু ব্যবসায়ীদের শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।

এ সময় বোরহানউদ্দিন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ রায়হান-উজ্জামান এবং এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট নাজমুল হাসানকে ভ্রাম্যমান অভিযান পরিচালনা করার জন্য স্থানীয় লোকজন আন্তরিক ধন্যবাদ জ্ঞাপন করলে প্রশাসনের কর্তাব্যক্তিরা বলেন, আপনাদেরকে সেবা দেয়াই প্রশাসনের কাজ। আপনাদের অসুবিধার কথা উপজেলা প্রশাসনকে জানাবেন, আমরা যথাসাধ্য চেষ্টা করব আপনাদেরকে সেবা দেয়ার।
তবে আপনারা লিখিত অভিযোগ দিলে আমরা এখানে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন বন্ধ করার যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

উল্লেখ্য, গত (১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২৩) বোরহানউদ্দিন উপজেলার কুতুবা ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের ফকির বাড়ি চৌরাস্তা নামক স্থানে জয়া-বোরহানউদ্দিন সড়কে অবৈধ ভাবে বালু ড্রেজার পাইপ বসিয়ে বালু সরবরাহ করার সময় বোরহানউদ্দিন উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ রায়হান উজ্জামান খবর পেয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন।

যা জাতীয় ও আঞ্চলিক পত্রিকায় নিউজ প্রচারিত হয়েছে এবং অনলাইন মিডিয়ায় ব্যাপক প্রচার হওয়ায় বোরহানউদ্দিন উপজেলাবাসীর পক্ষ থেকে বোরহানউদ্দিন উপজেলা প্রশাসন প্রশংসিত হয়েছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2017
Developed By

Shipon