আজ বুধবার, ১৭ Jul ২০২৪, ০৯:৪২ অপরাহ্ন

Logo
মানুষের দুর্ভোগ লাঘবে আবারো নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন তৌহিদুল ইসলাম বাদশা

মানুষের দুর্ভোগ লাঘবে আবারো নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন তৌহিদুল ইসলাম বাদশা

 

মানুষের দুর্ভোগ লাঘবে আবারো নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন তৌহিদুল ইসলাম বাদশা

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥

আসন্ন বরিশাল সিটি নির্বাচন। তফসিল অনুযায়ী ভোট অনুষ্ঠিত হবে আগামী ১২ জুন। সে লক্ষ্যে বিভিন্ন দল থেকে মনোনীত মেয়র প্রার্থীরা প্রচারণাসহ নানাবিধ নির্বাচনী কর্মকাণ্ডে বাস্তবায়নের দিকে অগ্রসর হচ্ছেন। শুধু মেয়র প্রার্থীরাই নন, নগরীর ৩০ ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থীরাও তোরজোড় করে গোছাচ্ছেন নির্বাচনী মাঠ। পৌছে যাচ্ছেন ভোটারদের দোড়গোড়ায়। মেয়রের পাশাপাশি এবারে কাউন্সিলর প্রার্থীর সংখ্যাও বৃদ্ধি পেয়েছে। ভোটারদের অধিকাংশের প্রত্যাশা নতুন নেতৃত্ব। তবে অধিকাংশ ওয়ার্ডেই ভরসা ও আস্থার প্রতিক হিসেবে পুনরায় বর্তমান কাউন্সিলরদেরই পাশে চাচ্ছেন তারা।

এমনি নগরীর ০৪ নং ওয়ার্ডের ভোটারদের প্রত্যাশা প্রকাশ পেয়েছে। তারা বর্তমান কাউন্সিলরের ওপর আস্থা রেখেই পুনরায় জনপ্রতিনিধির চেয়ারে তাকেই বসাতে চাচ্ছেন। সূত্রে জানা যায়, ওয়ার্ডটির বর্তমান কাউন্সিলর তৌহিদুল ইসলাম বাদশা। বর্তমানে তিনি এই ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদে একজন মানবিক ব্যক্তিত্ব হিসেবে সুপরিচিতি লাভ করেছেন এবং ভোটারদের হৃদয়ে জায়গা করে নিয়েছেন।

জনসাধারণের সেবায় নিজেকে পুনরায় বিলিয়ে দিতে ওয়ার্ড থেকে এবারেও নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন তিনি। স্থানীয়রা জানান, বরিশাল নগরীর ৪ নং ওয়ার্ডে একজন সফল জনপ্রতিনিধিত্ব হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন তৌহিদুল ইসলাম বাদশা। তিনি ইতিবাচক কর্মকান্ডে প্রশংসা কুড়িয়েছেন সর্ব মহলে। ওয়ার্ডবাসীর সুবিধা-অসুবিধায় তিনি সর্বদাই একধাপ এগিয়ে রয়েছেন। তিনি ওয়ার্ডের ইতিবাচক নানামুখী কর্মকান্ড বাস্তবায়ন ও মসজিদ মাদ্রাসায় উন্নয়নে সহযোগীতায় তার ভুমিকা ছিল লক্ষনীয়। ইতিবাচক মুল্যবোধের অধিকারী সম্পন্ন ব্যক্তিত্ব বাদশা জীবনের গুরুত্বপূর্ণ সময় মানুষকে সেবার মধ্য দিয়ে কাটিয়ে যাচ্ছেন। তার নানাবিধ মানবিক কর্মকান্ডে ইতিমধ্যেই তিনি একজন মানবিক ব্যক্তিত্ব হিসেবে সুপরিচিতি লাভ করেছেন। ওয়ার্ডবাসীর ভাগ্যয়োন্ননে নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন তিনি।

তিনি সর্বদা দান-সদকার পাশাপাশি সমাজের গরীব দুঃখী অবহেলিত মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে তাদের দুর্ভোগ লাঘবের প্রচেস্টা অব্যাহত রেখেছেন। ইসলামের খেদমতেও বারংবারই একধাপ এগিয়ে তিনি। স্কুল, কলেজ থেকে শুরু করে বিভিন্ন ধর্মীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্রায়সই নানাবিধ চাহিদা সাধ্যমত পূরণ করছেন তিনি। সমাজ সেবামুখী প্রত্যেক ইতিবাচক কর্মকান্ডে তাকে সক্রিয় অবস্থানেই দেখা যায়। তিনি শুধু এই এলাকায়ই নয়, নিজের সর্বোচ্চ সাধ্যমত বিভিন্ন স্থানের অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে প্রায়সময়ই প্রশংসা কুড়িয়ে চলেছেন। এছাড়া সর্বদা ওয়ার্ডবাসীর পাশে থেকে শুধু প্রশংসাই কুড়ান না বরংচ স্থানীয়দের মাঝে আস্থার প্রতিক হিসেছে মুল্যায়িত হয়েছেন।

তৌহিদুল ইসলাম বাদশা জানান, জনগণের সুবিধা-অসুবিধায় সার্বক্ষনিক পাশে থাকার চেষ্টা করি। মানুষের কাঙ্খিত উন্নয়ন করতে পারিনি। জলাবদ্ধতা যেন মানুষের ভোগান্তির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এগুলো নিরসন অতীব জরুরী। এছাড়া রাস্তাগুলোতে পর্যাপ্ত লাইট নেই। রাতে মানুষের অন্ধকারে চলাচল করতে হয়। আমি নিজস্ব অর্থায়নে রোড লাইট দিয়েছি। বরিশাল সিটি নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতিকের প্রার্থী আমাদের আবুল খায়ের আব্দুল্লাহ খোকন সেরনিয়াবাত ভাই অত্যন্ত ভালো মনের মানুষ। আমি আশা করি আগামী ১২ জুনের নির্বাচনে জনগণ তাকে ভালবাসার মধ্য দিয়ে নির্বাচিত করবেন। পাশাপাশি আমিও জনগণের ভালবাসার মধ্য দিয়ে নির্বাচিত হতে পারলে ওয়ার্ডের এসব সমস্যা এবারে নিরসন করতে পারব। ওয়ার্ডকে একটি উন্নত ওয়ার্ড হিসেবে গড়ে তুলতে পারব। মানুষের সেবায় নিয়োজিত রয়েছি। জনগণের ভালবাসার মধ্য দিয়ে মৃত্যুর আগ মুহুর্ত মানুষের দুর্ভোগ লাঘবে নিরলস কাজ করে যাব। সুষ্ঠু নির্বাচনের বিষয়ে তিনি বলেন, সুষ্ঠু নির্বাচনে শতভাগ প্রত্যাশী। কেননা ইভিএমে ভোটগ্রহণ হবে। সেখানে সর্বোচ্চ স্বচ্ছতা রয়েছে।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে ইভিএমও একটি অংশ। ওয়ার্ডে নির্বাচন ঘিরে নানাবিধ অসাধু পহ্না অবলম্বন করে চলেছে একটি পক্ষ বলে শঙ্কাও প্রকাশ করেন বাদশা। তিনি বলেন, আমার কর্মী সমর্থকদের হুমকি দেয়া হচ্ছে। তথাপি এসব কিছুর কর্ণপাত না করে মানুষের ভালবাসাকে শক্তিতে রুপান্তরিত করে পুনরায় নিজেকে জনসেবায় বিলিয়ে দেয়ার মাধ্যমে বিজয়ের আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি। তিনি আরও বলেন, জনগণের পাশে আগেও যেমন ছিলাম বর্তমানেও আছি আর মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত তাদের সেবায় নিয়োজিত রাখতে চাই। জনগণ যোগ্য প্রার্থীকেই বাছাই করে নিবেন বলেও জানান তিনি। উল্লেখ্য, আগামী ১২ জুন বরিশাল সিটি করপোরেশন নির্বাচন। মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ তারিখ ছিল ১৬ মে। ১৮ মে মনোনয়নপত্র বাছাই হয়েছে। ২৫ মে পর্যন্ত মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করা যাবে। ২৬ মে প্রার্থীদের মাঝে প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হবে বলে নির্বাচন কার্যালয় সূত্রে নিশ্চিত হওয়া গেছে।

বরিশাল সিটি করপোরেশন এলাকায় ভোট কেন্দ্র ১২৩টি। মোট ভোটার ২ লাখ ৭৪ হাজার ৪০৭ জন। ৪নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার সংখ্যা ১০৫৪১জন, মোট ভোট কেন্দ্র ৫টি, ভোটকক্ষ ৩৬টি। তবে ভোটার এবং ভোট কেন্দ্র আপডেট হচ্ছে বলে রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে জানা গেছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2017
Developed By

Shipon