আজ বৃহস্পতিবার, ১৮ Jul ২০২৪, ০৮:১৪ অপরাহ্ন

Logo
রাত পোহালেই গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনে ভোট

রাত পোহালেই গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনে ভোট

 

রাত পোহালেই গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনে ভোট

পল্লী জনপদ ডেস্ক॥

রাত পোহালেই গাজীপুর সিটি করপোরেশনের (জিসিসি) তৃতীয় নির্বাচনের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। বৃহস্পতিবার (২৫ মে) ভোটগ্রহণের জন্য ইতোমধ্যে সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে নির্বাচন কমিশন। বুধবার সকাল থেকে ভোট কেন্দ্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের কাছে ইভিএম মেশিনসহ ৪৬ আইটেমের সামগ্রী বিতরণ কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

১১ লাখ ৭৯ হাজারেরও বেশি ভোটারের জন্য ৪৮০টি কেন্দ্রের তিন হাজার ৪৯৭টি কক্ষ স্থাপন করা হয়েছে। এসব কেন্দ্রে ব্যবহার করার জন্য পাঁচ হাজার ২৪৬টি ইভিএম মেশিন প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা এএইচএম কামরুল ইসলাম জানান, গাজীপুর জেলা প্রশাসন কার্যলয় চত্বর, শহরের কাজী আজিম উদ্দিন কলেজ এবং জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রতি কেন্দ্রের জন্য একযোগে ইভিএম মেশিন, হ্যান্ড সেনিটাইজার, ভেসেলিন, মখমলের কাপড়, টিস্যু, বুথ কক্ষ নির্মাণের জন্য কাপড়, অমোছনীয় কালি, ভোটার তালিকা, স্ক্রু-ড্রাইভার, মাল্টিপ্লাগসহ ৪৬ আইটেমের সামগ্রী বিতরণ শুরু করা হয় বুধবার দুপুর ১টা থেকে। কেন্দ্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রিজাইডিং, সহকারী প্রিজাইডিং অফিসারগণ এসব সামগ্রী বুঝে নিচ্ছেন।

জানা গেছে, নির্বাচনী প্রচারণার শেষ দিনে মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীদের ব্যাপক গণসংযোগ ও প্রচারণায় ছিল মুখরিত।

এদিকে, গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের (জিএমপি) কমিশনার মোল্যা নজরুল ইসলাম বলেছেন, সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন যেন সুষ্ঠু ও সুন্দর হয় সেজন্য প্রয়োজনীয় নিরাপত্তা নিশ্চিত করব। ভোটকেন্দ্রের আশপাশে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর মোবাইল ফোর্স, স্ট্রাইকিং ফোর্স, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট থাকবে। এটা একটা সমন্বিত প্রয়াস। আমরা সবাই মিলে একসঙ্গে কাজ করব।

বুধবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে শহরের শহীদ বরকত স্টেডিয়ামে সিটি নির্বাচনে দায়িত্বপ্রাপ্ত আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের ব্রিফিং অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

জিএমপি কমিশনার বলেন, আমাদের মূল উদ্দেশ্য একটি সুষ্ঠু নির্বাচন করা। জনগণ আসবে, সুষ্ঠু-সুন্দরভাবে ভোট দিয়ে চলে যাবে। আমরা দেখিয়ে দিতে চাই। পুরো গাজীপুরসহ সারা বিশ্বের লোকজন তাকিয়ে আছে আমাদের দিকে, আমরা যেন একটি ভালো ও সুষ্ঠু নির্বাচন দিতে পারি।

ইতোমধ্যে মেয়র, সাধারণ আসনে কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর পদে প্রার্থীরা তাদের নিজ নিজ এলাকায় ব্যাপকভাবে প্রচার-প্রচারণা চালিয়েছেন। নির্বাচনে জয়ী হতে মরিয়া তারা। শেষ দিন হওয়ায় প্রার্থী ও তাদের কর্মী-সমর্থকরা ভোটারদের দ্বারে দ্বারে গিয়ে ভোট প্রার্থনা করছেন। বিভিন্ন প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন।

গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে ৮জন, সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর পদে ৭৯ জন এবং সাধারণ আসনের কাউন্সিলর পদে ২৪৬ জনসহ মোট ৩৩৩ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এরমধ্যে ১৫ নম্বর ওয়ার্ডে সাধারণ আসনে কাউন্সিলর পদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ফয়সাল আহমেদ সরকার নির্বাচিত হয়েছেন।

নির্বাচনে ৫৭টি ওয়ার্ডের ৪৮০টি ভোট কেন্দ্র তিন হাজার ৪৯৭টি ভোট কক্ষ থাকবে। সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী গাজীপুর সিটি করপোরেশনে মোট ভোটার সংখ্যা ১১ লাখ ৭৯ হাজার ৪৬৩ জন। এরমধ্যে পুরুষ ভোটার ৫ লাখ ৯২ হাজার ৭৪৭ জন এবং মহিলা ভোটার ৫ লাখ ৮৬ হাজার ৬৯৮ জন এবং হিজড়া ভোটার ১৮ জন। এ নির্বাচনে ৪৮০ জন প্রিজাইডিং অফিসার, ৩ হাজার ৪৯৭ জন সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার ও ৬ হাজার ৯৯৪ জন পোলিং অফিসারসহ ১০ হাজার ৯৭১ জন ভোট গ্রহণকারী কর্মকর্তা থাকবেন।

গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে আলোচনায় আছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আজমত উল্লা খান (নৌকা)। এছাড়া অন্যান্য প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীরা হলেন- জাতীয় পার্টির এমএম নিয়াজ উদ্দিন (লাঙ্গল), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর গাজী আতাউর রহমান (হাতপাখা), জাকের পার্টির মো. রাজু আহমেদ (গোলাপ ফুল), গণফ্রন্টের আতিকুল ইসলাম (মাছ), স্বতন্ত্র প্রার্থী জায়েদা খাতুন (টেবিল ঘড়ি), শাহনুর ইসলাম সরকার (হাতি), হারুন অর রশীদ (ঘোড়া)।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2017
Developed By

Shipon