আজ রবিবার, ২৩ Jun ২০২৪, ০৭:২১ পূর্বাহ্ন

Logo
সরকারের মহতি উদ্যোগকে করা হচ্ছে প্রশ্নবিদ্ধ

সরকারের মহতি উদ্যোগকে করা হচ্ছে প্রশ্নবিদ্ধ

 

সরকারের মহতি উদ্যোগকে করা হচ্ছে প্রশ্নবিদ্ধ

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥

প্রাথমিক বিদ্যালয় ও মাদ্রাসার ছাত্র-ছাত্রীদের দিয়ে চলছে বরিশালের গৌরনদী উপজেলার ঝড়ে পড়া ছাত্র-ছাত্রীদের স্কুল কার্যক্রম। উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের ২০২১ সালের এক জরিপে এ উপজেলায় ১২ জন ঝড়ে পড়া শিক্ষার্থী থাকলেও প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরোর আউট অব স্কুল চিলড্রেন কর্মসূচীর আওতায় গৌরনদীতে সহস্রাধিক ঝড়ে পড়া শিক্ষার্থী দেখিয়ে সরকারের মহতি উদ্যোগকে প্রশ্নবিদ্ধ করা হচ্ছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, এ উপজেলায় আউট অব স্কুল চিলড্রেন কর্মসূচীর ৪৬টি স্কুল ভোসড নামের একটি এনজিও বাস্তবায়ন করছে। ৪৬টি স্কুলে শিক্ষার্থী দেখানো হয়েছে ১১৭৩ জন। যার অধিকাংশই প্রাথমিক বিদ্যালয় ও মাদ্রাসার ছাত্র-ছাত্রী। এছাড়াও শুরু থেকেই প্রকল্পের বরাদ্দ ও অন্যান্য কার্যক্রমের বিষয়ে গণমাধ্যম কর্মীদের তথ্য দিতে লুকোচুরি করে আসছে বাস্তবায়নকারী সংস্থা ভোসডের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা।

সূত্রে আরও জানা গেছে, বিগত চারদলীয় জোট সরকারের আমলে পুষ্টি প্রকল্পের মাধ্যমে কোটি কোটি হাতিয়ে নিয়েছিলো এনজিও ভোসড। ঝড়ে পড়া শিক্ষার্থীদের নামে প্রাথমিক ও মাদ্রাসার ছাত্র-ছাত্রী দিয়ে আউট অব স্কুল চিলড্রেন কর্মসূচী পরিচালনা করে সরকারের মহতি উদ্যোগকে প্রশ্ন বিদ্ধ করার চেষ্টা করছে বাস্তবায়নকারী সংস্থা ভোসড।

নামপ্রকাশ না করার শর্তে একাধিক শিক্ষকরা অভিযোগ করে বলেন, স্কুলের ব্লাকবোর্ড থেকে শুরু করে যে উপকরণগুলো দেওয়া হয়েছে তা খুবই নিন্মমানের। এছাড়াও ছাত্র-ছাত্রীদের যে পোশাকগুলো দেয়া হয়েছে তার অধিকাংশই শিক্ষার্থীরা পরতে পারছেনা। অপরদিকে স্কুল শুরুর আগে যে সকল সুযোগ-সুবিধা দেয়ার কথা ছিলো তার কোনটাই এনজিও ভোসড বাস্তবায়ন করছেনা।

এ বিষয়ে গৌরনদী উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার (অতিরিক্ত দায়িত্ব) মোঃ চুন্নু ফকির বলেন, আউট অব স্কুল চিলড্রেন কর্মসূচীর স্কুল সম্পর্কে আমাদের কিছ্ইু জানানো হয়নি। এ স্কুলগুলো পরিচালনার জন্য কতো টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে তাও আমার জানা নেই।

বরিশাল উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরোর অতিরিক্ত দায়িত্বে থাকা সহকারী পরিচালক মোঃ মাসুম বলেন, আউট অব স্কুল চিলড্রেন কর্মসূচী বাস্তবায়নকারী এনজিও ভোসডের কিছু অনিয়মের বিষয়ে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য ইতোমধ্যে চিঠি ইস্যু করা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, আমি সম্প্রতি বরিশালে যোগদান করেছি। জেলায় মোট কতো টাকা বরাদ্দ হয়েছে তা পুরো ফাইল না দেখে বলা যাচ্ছেনা।

এ বিষয়ে জানতে ভোসডের নির্বাহী পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান ও বরিশালের কো-অর্ডিনেটর মহাদেব কুমারকে একাধিকবার ফোন করা হলেও তারা ফোন রিসিভ না করায় কোন বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে গৌরনদী উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিপিন চন্দ্র বিশ্বাস বলেন, উপজেলার ৪৬টি স্কুলের জন্য কতো টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে তা আমাদের জানা নেই। তবে স্কুলগুলো পরিদর্শন করে বাস্তবায়নকারী সংস্থার বিরুদ্ধে কোন অনিয়ম পাওয়া গেলে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2017
Developed By

Shipon